আইন ও আদালত

রূপনগরে সন্ত্রাসীরা চাঁদা নিয়ে ক্ষ্যান্ত হননি, অবশেষে বাড়ীটি দখলের পায়তারা

%e0%a6%b0%e0%a7%82%e0%a6%aa%e0%a6%a8%e0%a6%97%e0%a6%b0%e0%a7%87-%e0%a6%b8%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%b8%e0%a7%80%e0%a6%b0%e0%a6%be-%e0%a6%9a%e0%a6%be%e0%a6%81%e0%a6%a6

সোহেল রানাঃ

রাজধানীর রূপনগর দুয়ারীপাড়া এলাকার এক স্থানীয় সন্ত্রাসী গ্রুপের বিরুদ্ধে বাড়ি দখলের পায়তারার অভিযোগ করেছেন এক অসহায় ভুক্তভুগি পরিবার।

ওই সন্ত্রাসী গ্রুপটি বাড়ী দখলের বাইরেও প্লট মালিককে প্রানে মারার হুমকিসহ নানা ধরনের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। ভুক্তভোগি মোঃ আব্দুল ওয়াদুদ অভিযোগ করে বলেন, রূপনগর থানাধীন ইষ্টার্ণ হাউজিং কড়াই তলা প্লট নং বি-১৪, লেন-২, ব্লক-বি, ২য় ফেস পল্লবী, প্লটের ৬ কাঁঠা জমি ক্রয় করে উক্ত সম্পত্তির খাজনা প্রদানসহ জমির সকল কাগজপত্র হালনাগাদ করে সেখানে একটি টিনসেড বাড়ী নির্মাণ করা জন্য চতুর পাশে দেওয়াল তুলে বাউন্ডারী করি ও রাস্তার সাথে ৬টি দোকান ঘর করি। এর মধ্যে দুয়ারীপাড়ার মুক্তিযোদ্ধা আমির হোসেন মোল্লা’র ছেলে মাদক সেবি সন্ত্রাসী মনির মোল্লাহ ও তার সহোযোগী সন্ত্রাসী ভাগনা রনি আমার নিকট ১০ লাখ টাকা চাঁদাদাবী করে। আমি তাদের দাবীকৃত চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে আমার নিজ নামীয় সম্পত্তি মনির মোল্লা দাবী করে জোরপূর্বক রাতের আধারে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেয় এবং বলে টাকা না দিলে বাড়ী দখল করে নিবো এই বলে ভয়ভীতি ও আমাকে প্রান নাসের হুমকি দেয়। তিনি আরো বলেন আমি তাদের ভয়ে ও নিজের জান রক্ষার্থে সন্ত্রাসী মনির মোল্লাহ ও তার ভাগনা রনিকে বিভিন্ন তারিখ ও সময়ে ৪ লাখ ৮৫ হাজার চাঁদা দেই। পরে আরো চাদা দাবী করে তাদের দাবী কৃত চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করিলে তারা জোর করে সব দোকান ভাড়া দিয়ে এ্যাডভান্স নেয়। এবং এখন তারা আমাকে মেরে ফেলার ভয় দেখাচ্ছে। তারা বলে বাড়ীর নিকট এলে তোকে মেরে ফেলবো এমনকি দোকান ভাড়ার টাকাও তারা জোর করে প্রতি মাসে নিয়ে যাচ্ছে। ভুক্তভোগী আরো বলেন আমি বাড়ীতে কাজ করতে ইট, বালু, রড ও সিমেন্ট রাখলে মনির মোল্লার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে রাতের অন্ধকারে সব চুরি করে নিয়ে যায়। এ বিষয়ে আমি রূপনগর থানায় একটি অভিযোগ করেছি।

প্লটের দোকানের ভাড়াটিয়ারা বলেন জমির মালিক ওয়াদুদ সাহেব কিন্তু দোকানের ভাড়া নেয় মনির মোল্লা, এবং এডভান্স নিয়েছে মনির মোল্লার ভাগিনা রনি। আজও ভাড়ার টাকা নিয়ে গেছে। ভাড়া দিছেন কেন? জানতে চাইলে দোকান্দাররা বলেন মনির মোল্লার সামনে কথা বলার সাহস এই এলাকায় কারো নেই, আমরা টাকা না দিলে দোকানে তালা মেরে দেয় বিভিন্ন গালমন্দ করে। আমরা অস্থায়ী মানুষ তাদের বাহিনীর সামনে অসহায়।

স্থানীয় বাসিন্দা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বলেন মনির মোল্লার কমড়ে পিস্তল থাকে, বাড়ী ওয়ালারে যদি ঠুস করে একটা গুলি দেয় তাহলে তার কিছুই হবেনা। তার বাবা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ হাসিনাও তাদের সালাম দেয়। তিনি আরো বলেন দুয়ারীপাড়ায় ৫ তলা বিল্ডিং করার নিয়ম নেই অথচ তারা বিশাল একটা বিল্ডিং করছে।

দুয়ারীপাড়া এলাকা ঘুরে জানাগেছে মনির মোল্লার চরিত্রে বহু রংয়ের কালী মাখা। এক স্ত্রী নিয়ে বেশি দিন ঘর সংসার করতে অনীহা তার। গাড়ীর মতো স্ত্রীও পাল্টায়। অন্যের স্ত্রী কেড়ে এনে নিজের ঘরে বাসর সাজানো পুরনো অভ্যাস। এছাড়াও মনির মোল্লার বহুতল ভবনের পিছনে বালুর মাঠ এলাকা থেকে প্রায়ই অর্ধ কোটি টাকা মাসে ভাড়া পান।

সরকারি জমি দখল করে ঘর তুলে ভাড়া। উক্ত ঘরে রয়েছে গ্যাস, বিদ্যুৎ, ও পানির অবৈধ সংযোগ। দুয়ারীপাড়া মোড়ে ফুটপাত থেকেও মোটা অংকের চাঁদা পান তিনি। গভির রাতে মদ্যপান করে এলাকায় হৈচৈ চেচামেচি নতুন কিছু নয়। বেশি মাতাল হলে শর্টগান বের করেই আকাশের দিকে গুলি ছুঁড়েন।

রূপনগর থানা প্রশাসনের লোকজনও জিম্মি মনির মোল্লার কাছে। কিছু দিন আগে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে ডেসকোর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দুয়ারীপাড়া এলাকায় অভিযান চালালে মনির মোল্লা সরকারি কাজেও বাধা বিঘ্ন ঘটান। মনির মোল্লার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সামনে স্থানীয় এমপি, কাউন্সিলর ও ভীতু।

Print Friendly, PDF & Email
Comments
Share

bangladesh ekattor

বাংলাদেশ একাত্তর.কম

Reply your comment

Your email address will not be published. Required fields are marked*

বাংলাদেশ একাত্তর