বুধবার , ১৩ এপ্রিল ২০২২ | ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খেলাধুলা
  6. জাতীয়
  7. তথ্য-প্রযুক্তি
  8. ধর্ম
  9. বিনোদন
  10. বিশেষ সংবাদ
  11. রাজধানী
  12. রাজনীতি
  13. লাইফস্টাইল
  14. শিক্ষা
  15. শিল্প ও সাহিত্য

ভুয়া সামরিক কর্মকর্তা গ্রেফতার (২); পিস্তল, গুলি, ইউনিফর্ম, ওয়াকিটকি সেট উদ্ধার

প্রতিবেদক
bangladesh ekattor
এপ্রিল ১৩, ২০২২ ১:০৩ অপরাহ্ণ

র‌্যাবের হাতে ভুয়া সামরিক কর্মকর্তা গ্রেফতার (২); পিস্তল, গুলি, ইউনিফর্ম, ওয়াকিটকি সেট উদ্ধার।

বাংলাদেশ একাত্তর.কম / নিজেস্ব প্রতিবেদক;

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ১২ এপ্রিল ২০২২ তারিখ রাত সোয়া আটটার দিকে র‌্যাব-৪ এর একটি দল রাজধানীর শাহ আলী থানাধীন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ১ টি পিস্তল, ২ রাউন্ড গুলি, ২ টি ওয়াকিটকি সেট, সামরিক বাহিনীর ইউনিফর্ম, ১ জোড়া বুট, ২ সেট র‌্যাংক বেজ, ২ টি পাসপোর্ট, ২ টি চেক বই, ভিজিটিং কার্ড এবং ৪ টি মোবাইলসহ নিম্নোক্ত ২ জন প্রতারক’কে গ্রেফতার করতে সমর্থ হয়ঃ

আটকৃতরা হলো ১, ইয়াসিন আরাফাত তুষার (২৮), জেলা-মন্সিগঞ্জ। ২, মোঃ আল আমিন @ হীরা (২৫), জেলা-ঢাকা।,

সম্প্রতি একজন নারী ভুক্তভোগী র‌্যাব-৪ বরাবর অভিযোগ করেন যে, আরাফাত তুষার নামে এক প্রতারক সেনাবাহিনীর মেজর পরিচয় দিয়ে তাকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিবাহের উদ্দেশ্যে তার সহযোগী বন্ধু, খালাতো ভাই ও নিজেকে মেজর পরিচয় দিয়ে ভুক্তভোগীর বাসায় এসে প্রতারণামূলকভাবে বিবাহের অভিনয় করে এবং নানা রকম হুমকি প্রদান করে।

ভুক্তভোগী নারীর সাথে গ্রেফতারকৃত আসামী তুষারের ফেসবুকে পরিচয় হয়, যার সুবাদে সে নিজেকে মেজর পরিচয় দেয়। এরপর হতে উক্ত প্রতারক তুষার ভিডিও কলে বিভিন্ন সময় সেনাবাহিনীর বিভিন্ন পোশাক পরিহিত ছবি ভুক্তভোগীর মেসেঞ্জারে পাঠিয়ে সত্যতা নিশ্চিত করার চেষ্টা করে। ভিডিও কলে বিভিন্ন ভিজিটিং কার্ড এবং ওয়াকিটকি সেটসহ সেনাবাহিনীর বিভিন্ন প্রশিক্ষণের সার্টিফিকেট দেখায়। সেনাবাহিনীর পোশাক পরিহিত কমান্ডোসহ বিভিন্ন র‌্যাংকের ব্যাজ, মনোগ্রাম ইত্যাদি দেখিয়ে ভিকটিমকে প্রতারিত করে।

আজই যোগাযোগ করুনঃ

আরও জানা যায়, তুষার ২০০৯ সালে মানিকদীর একটি স্কুল হতে এসএসসি পাশ করে। এরপর ২০০৯ সালেই স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়া চলে যায় কিন্তু পড়াশুনা শেষ না করে ২০১৩ সালে দেশে চলে আসে। পরবর্তীতে এক মেয়েকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে করে। তুষার পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন দেশে গমন করেছে বলে জানায়। সর্বশেষ ২০১৮ সালের দিকে দেশে ফিরে আসে এবং মেজর, র‍্যাব কর্মকর্তা ও গোয়েন্দা কর্মকর্তা ইত্যাদি বিভিন্ন পরিচয়ে প্রতারনামূলক কাজে লিপ্ত হতে থাকে।

প্রতারনার কৌশলঃ গ্রেফতারকৃত আসামী তুষার তার সহযোগীদের নিয়ে নিম্নোক্ত কৌশলে প্রতারণা করে আসছিলোঃ

৩। সেনাবাহিনীর মেজর পরিচয় দিয়ে থাকে।

৪। বিভিন্ন সময় গোয়েন্দা কর্মকর্তা হিসেবে প্রচার করে থাকে।

৫। বিভিন্ন সময় সেনাবাহিনীর বিভিন্ন পোশাক পরা ছবি মেসেঞ্জারে প্রেরণ করে।

৬। ভিডিওকলে ওয়াকিটকি সেট প্রদর্শন করে।

৭। বিভিন্ন র‌্যাংক-ব্যাজ প্রদর্শন করে।

৮। প্রশিক্ষনের বিভিন্ন সার্টিফিকেট প্রদর্শন করে।

৯। বিভিন্ন প্রকার ট্রাভেল ব্যাগ, ব্যকপ্যাক, তাবু, জার্সি, ওয়ার্কিং ড্রেস, ওয়াকিটকিসেট ইত্যাদি দেখিয়ে মিশনে গমনের বিষয়ে মিথ্যা তথ্য দিত।

১০। বিভিন্ন ব্যক্তির নামে ভুয়া আইডি কার্ড প্রদর্শন করে।

১১। সেনাবাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার নাম ব্যবহার করে তাদের সাথে ঘনিষ্ঠতার কথা বলে।

১২। তার হেফাজতে থাকা অবৈধ পিস্তল দেখিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে।

গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন। অদূর ভবিষ্যতে এইরুপ অসাধু সংঘবব্ধ প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে র‌্যাব-৪ এর জোড়ালো সাঁড়াশি অভিযান অব্যাহত থাকবে।

সর্বশেষ - রাজনীতি