জাতীয়, সারাদেশ

ওরা মডেলিংয়ের নামে নারীদের পাশ্ববর্তী দেশে বিক্রি করে

%e0%a6%93%e0%a6%b0%e0%a6%be-%e0%a6%ae%e0%a6%a1%e0%a7%87%e0%a6%b2%e0%a6%bf%e0%a6%82%e0%a7%9f%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%a8%e0%a6%be%e0%a6%ae%e0%a7%87-%e0%a6%a8%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a7%80%e0%a6%a6

বাংলাদেশ একাত্তর.কম

রাজধানীর দারুস সালাম থানাধীন এলাকা হতে মানবপাচারকারী চক্রের ৩ নারীসহ ৬ সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪।

<script data-ad-client=”ca-pub-2965186520548521″ async src=”https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js”></script>

মানব পাচারকারীরা হলো ১ । মোঃ সেকেন্দার হোসেন (৩৫), ২। মোঃ আসাদুজ্জামান @ আকাশ (২৮), ৩। নুর মোহাম্মদ @ আলীফ (২৮),।৪ মোসাঃ বুলবুলি বেগম (২২), ৫। রুবি আক্তার (৩১),।৬ কলি আক্তার (২০)।,

উক্ত অভিযানে আধারকার্ড, প্যানকার্ড, মোবাইল এবং মানবপাচার সংশ্লিষ্ট গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র জব্দ করা হয়। আটককৃতরা দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত অল্প বয়সের নারীদের লোভনীয় চাকরি, মডেলিং করার কথা বলে পাশ্ববর্তী দেশে বিক্রি দেহ করাতে বাধ্যকরাত।  ভিকটিমের মা ও মামার তথ্যমতে ২৯শে ডিসেম্বর উক্ত থানা এলাকার বেড়িবাঁধ নামক স্থান থেকে তাদের আটক করা।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গ্রেফতারকৃতরা পাশ্ববর্তী দশে মানবপাচার বিক্রি ও দেহব্যবসা করাত বলে স্বীকারোক্তি জবানবন্দি দিয়েছে।

<script data-ad-client=”ca-pub-2965186520548521″ async src=”https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js”></script>


পার্শ্ববর্তী দেশে মানব পাচারকারী চক্রের মূলহোতা গ্রেফতারকৃত সেকেন্দার হোসেন ও তার সহযোগী আসাদুজ্জামান @ আকাশ, নুর মোহাম্মদ @ আলিফ এবং বুলবুলি বেগম। এই চক্রে তাদের সহযোগী হিসেবে দেশে আরো ৫-৭ জন সদস্য রয়েছে। তাছাড়া পার্শ্ববর্তী দেশে তাদের বেশ কয়েকজন সহযোগী রয়েছে। ইতোমধ্যে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ভারতীয় নাগরিক লাইনম্যান দীপক ও খোকা @ কংকাই এবং সহযোগী মারিয়া ও তামান্নাদের নাম পাওয়া যায়। বিগত কয়েক বছর ধরে এই চক্রটি সক্রিয়ভাবে মানব পাচারের মত অপরাধ করে আসছে। তারা পার্শ্ববর্তী দেশে বিভিন্ন মার্কেট, সুপারশপ, বিউটি পার্লারসহ বিভিন্ন চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে পার্শ্ববর্তী দেশে পাচার করত। তাদের মূল টার্গেট ছিল দরিদ্র ও নিন্মমধ্যবিত্ত তরুণী। এই চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বিদেশে গমন প্রত্যাশী নিরীহ মানুষকে টার্গেট করে। এই চক্রটি ভিকটিমকে সীমান্তের অরক্ষিত অঞ্চল দিয়ে রাতের আধারে পার্শ্ববর্তী দেশে পাচার করে দেয়। মূলতঃ যৌন বৃত্তিতে নিয়োজিত করার উদ্দেশ্যেই ভিকটিমদের পাচার করা হত বলে গ্রেফতারকৃতরা জানায়। ভিকটিমদেরকে পার্শ্ববর্তী দেশে নেওয়ার পর সেখানে আটকে রেখে তাদেরকে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করে অন্যথায় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন সহ মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করে।

এই চক্রটি ঢাকাসহ দেশের বেশ কয়েকটি এলাকায় সক্রিয় রয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা আরও জানায়, ভিকটিমদেরকে রংপুর, দিনাজপুর, ফেনী, কুমিল্লা, নবাবগঞ্জ, শরিয়তপুর, মাদারীপুর এবং ঢাকার বিভিন্ন এলাকা থেকে সংগ্রহ করে পার্শ্ববর্তী দেশে উন্নত চাকরি দেওয়ার নামে অবৈধ পথে দেশে পাচার করে। পার্শ্ববর্তী দেশের চক্রের সদস্যরা ভিকটিমদের ভূয়া কাগজপত্র তৈরি করে। পার্শ্ববর্তী দেশে উক্ত মানব পাচারকারী চক্রের সদস্য দীপক খোকা @ কংকাই মুম্বাইতে সেইফহোমে ভিকটিমদের আটক রাখার মূল দায়িত্ব পালন করে থাকে এবং এ কাজে সহযোগীতা করে মারিয়া ও তামান্না। সেখানে অজ্ঞাত নামা আরও ২/৩ জন সদস্য রয়েছে। এ চক্রটি এ পর্যন্ত শতাধিক ভিকটিমকে পার্শ্ববর্তী দেশে পাচার করেছে বলে জানা যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন এবং এ নারীপাচারকারী চক্রের সাথে জড়িত অন্যান্য পলাতক আসামীদের গ্রেফতারে র‌্যাবের জোড়ালো অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Print Friendly, PDF & Email
Comments
Share

bangladesh ekattor

বাংলাদেশ একাত্তর.কম

Reply your comment

Your email address will not be published. Required fields are marked*

3 + 18 =

বাংলাদেশ একাত্তর