আইন ও আদালত, জাতীয়, রাজধানী

জাতীয় গৃহায়নের জায়গা দখল করে অবৈধভাবে তৈরী হচ্ছে বহুতল ভবন ”কর্তৃপক্ষ নীরব”

%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%9c%e0%a6%89%e0%a6%95%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%9c%e0%a6%be%e0%a7%9f%e0%a6%97%e0%a6%be-%e0%a6%a6%e0%a6%96%e0%a6%b2-%e0%a6%95%e0%a6%b0%e0%a7%87-%e0%a6%85%e0%a6%ac%e0%a7%88

(মোঃ রাজু আহমেদ) হাউজিং কর্তৃপক্ষের জায়গা দখল করে কোন অনুমোদন ছাড়াই খোদ রাজধানীর পল্লবীতে তৈরী হচ্ছে বহুতল আবাসিক ভবন। কর্তৃপক্ষ নীরব

সরেজমিনে জানাযায়, খোদ রাজধানীর পল্লবী থানাধীন মিরপুর-১২ নং সেকশনের ধ ব্লক, ৩৭২নং পৌনে এক কাঠা জমির প্লটটি দখল করে তৈরী করা হচ্ছে ৬তলা ভবন। স্থানীয়সুত্রে আরও জানাযায়, জায়গাটি পঞ্চ নামে এক দখলদার জায়গাটি দীর্ঘদিন দখল করে সেখানে প্রথমে টিনসেড দোকান ঘর তৈরী করে ভাড়া আদায় করতো। কিন্তু তার দখলের কালো থাবা এবার বিস্তৃত হয়ে সেখানে স্থায়ী ৬তলা ভবন তৈরী করছে।

রাজধানীর পল্লবীতে হাউজিং কর্তৃপক্ষের জায়গা দখল করে কোন অনুমোদন ছাড়াই তৈরী হচ্ছে বহুতল আবাসিক ভবনছবিঃ দীন ইসলাম।

পূর্বের আধাপাকা টিনসেড ঘরগুলি ভেঙ্গে সেখানে নতুন ভবন তৈরীর ক্ষেত্রে যথাযথ কোন কর্তৃপক্ষর পূর্ব অনুমতি নেয়া হয়নি। সম্পূর্ন অবৈধ ভাবে হাইজিংয়ের জায়গা দখল করে সেখানে কোন প্লান পাশ ছাড়াই তৈরী করা হচ্ছে স্থায়ী বহুতল ভবন। শুধুমাত্র নিজের খেয়াল খুশি মতো তৈরী করা হচ্ছে এই বহুতল ভবন।

এবিষয়ে জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ মিরপুরের উপসহকারী প্রকৌশলী ঢাকা উপ-বিভাগ-১ রাদিউজ্জামান বলেন, বর্ণিত আধাপাকা টিনসেড ভবনসহ জায়গাটি জনৈক পঞ্চ নামে এক দখলদার দখল করে সেখানে স্থায়ী বহুতন ভবন নির্মান করছে জানতে পেরে আমি জাতিয় গৃহায়ণ কতৃপক্ষ’র পক্ষ হতে পল্লবী থানায় একটি জিডি করেছি একইসাথে আমার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে লিখিত জানিয়েছি। জিডিনং-৭৭৯ তারিখ-১৭/১১/২০১৯।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, আমি এখন মিরপুর জোন হতে বদলী হয়েছি। সেহেতু এই জায়গা ও জায়গার উপর স্থায়ী বহুতল ভবন নির্মান কাজের বর্তমান অবস্থা ও দখল প্রতিরোধে বর্তমান পরিস্থিতির সম্পর্কে জানাতে পারছিনা।

বদলীস্থলে নতুন যোগদানকৃত উপসহকারী প্রকৌশলী ঢাকা উপ-বিভাগ-১ দীপক কুমার সরকারকে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

হাউজিংএর জায়গা দখল করে বহুতল ভবন নির্মান সম্পর্কে দখলদার পঞ্চ’র সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমার জমিতে ভবন বানাবো এতে প্লানের কি আর প্লান পাশেরই বা কি দরকার। আমার জায়গায় আগে টিনসেড ভবন ছিল, ভবনে বেশ কিছু দোকান ছিল। ভবনটি টিনসেড থাকায় বর্ষায় ঘরে পানি পড়তো আমি দোকান মালিকদের সমস্যার কথা বিবেচনা করে নিজের প্লানেই স্থায়ী পিলার দিয়ে বহুতল ভবন তৈরী করছি। এতে সমস্যা কোথায়?

জমি দখল করে বহুতল ভবন নির্মানের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার এ জমির কয়েকটি কিস্তি বাকী আছে সেজন্য হাউজিংএর বরাদ্ধপত্র আমার নাই। ভবনের কোন অনুমোদন আছে কি না জানতে চাইলে তিনি জানান, ছোট জায়গায় নিজের বাড়ী বানাচ্ছি এতে হাউজিংএর আবার অনুমোদন কিশের ? তাদের সমস্যা কি?

রাজধানীর পল্লবীতে হাউজিং কর্তৃপক্ষের জায়গা দখল করে কোন অনুমোদন ছাড়াই তৈরী হচ্ছে বহুতল আবাসিক ভবনছবিঃ দীন ইসলাম।

কিন্তু হাউজিংতো আপনার এ বাড়ী বানানোকে অবৈধ ঘোষনা করে বাড়ীটি বানানোর কাজ বন্ধ করতে নির্দেশ দিয়েছেন। আপনি তাদের নির্দেশনা না মানায় হাউজিং কর্তৃপক্ষ আপনার বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় জিডি করেছে এমন প্রশ্নে ভুমি দখলদার ও ভবন মালিক পঞ্চ রাগত: কন্ঠে বলেন, তারা জিডি করেছে আমি জানি এবং পল্লবী থানার পুলিশও আমার কাছে জিডিমূলে এসেছিলো কিন্তু আমার বাড়ী আমি বানাচ্ছি এতে তাদের সমস্যা কি বুঝতে পারছিনা।

এ বিষয়ে পল্লবী থানার এস আই রাজিব কুমার বলেন, হাউজিং কর্তৃপক্ষ তাদের জায়গা দখল করে স্থায়ী বাড়ীটি নির্মান বিষয়ে একটি জিডি করেছেন। আমি জিডির তদন্তকারী অফিসার হিসাবে ভবনটি পরিদর্শন করেছি এবং ভবনের কথিত মালিক পঞ্চ’র সাথে কথা বলেছি। নিয়ম অনুযায়ী আমি তার কাছে জায়গার বরাদ্ধপত্রসহ পুরাতন ভবন ভাঙ্গার অনুমতিপত্র এবং নতুন ভবন নির্মাণের প্লান পাশ কপি দেখতে চেয়েছিলাম তিনি আমাকে কোন কপিই দেখাতে পারেননি। আমি তাকে ভবনটি নির্মান কাজ বন্ধ রেখে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করতে অনুরোধ করেছি। এরপরও তিনি ভবন নির্মান কাজ চালিয়ে যান তাহলে আমি আমার উর্দ্ধোতন কর্তৃপক্ষকে জানাবো তারা যে নির্দেশনা দেবেন পরবর্তীতে সেমতে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এবিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ধ ব্লকের বাসিন্দা বলেন, পঞ্চ পূর্বে গাড়ীর ব্যবসা করতো। এভাবে দিনেদুপুরে জায়গা দখল করে বহুতল ভবন নির্মানের পেছনে নিশ্চয় কোন ক্ষমতাবান মহলের হাত রয়েছে নয়তো হাউজিং কর্তৃপক্ষের চোখে দিন দিপুরে কাঠের চশমা পড়িয়ে ভবন নির্মানের কাজ করছে না হলে একাজ সম্ভব কিভাবে?

Print Friendly, PDF & Email
Comments
Share
bangladesh ekattor

bangladesh ekattor

Reply your comment

Your email address will not be published. Required fields are marked*

four + eight =