সোমবার , ২২ অক্টোবর ২০১৮ | ১২ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আওয়ামীলীগ
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খেলাধুলা
  6. জাতীয়
  7. তথ্য-প্রযুক্তি
  8. ধর্ম
  9. বি এন পি
  10. বিনোদন
  11. বিশেষ সংবাদ
  12. রাজধানী
  13. লাইফস্টাইল
  14. শিক্ষা
  15. শিল্প ও সাহিত্য

বর্তমান বাংলাদেশে সর্ব ক্ষেত্রে স্বাধীনতা রয়েছে, গনভবনে প্রধানমন্ত্রী।

প্রতিবেদক
bangladesh ekattor
অক্টোবর ২২, ২০১৮ ৭:৩৮ অপরাহ্ণ

সোমবার  ২২শে অক্টোবর বিকেলে গণভবনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলেনে নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক সৌদি আরব সফর নিয়েই এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

গণভবনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলেনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের পর্ব।

[বাংলাদেশ একাওর] এস এম বাবুল

বর্তমান বাংলাদেশে সর্ব ক্ষেত্রে স্বাধীনতা রয়েছে, রাজনীতি স্বাধীনতা, কথা বলার স্বাধীনতা, বিচার বিভাগ স্বাধীনতা, সাংবাদিকতায় স্বাধীনতা, মানুষ  সর্ব ক্ষেত্রে স্বাধীনতা ভোগ করছে।

বর্তমান মন্ত্রিসভা প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, আপনারা দেখেছেন, আমাদের দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকলেও সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী সব দলকে নিয়েই মন্ত্রিসভা গঠন করেছি। এই মন্ত্রিসভা নিয়ে চলছি। আগে এটা ছিল না, আগে কেবল আমাদের আওয়ামী লীগেরই ছিল। এখন জনগণের প্রতিনিধি যারা, তাদের নিয়েই মন্ত্রিসভা রয়ে গেছে। তারপরও আমি বিরোধী দলীয় নেতা (জাতীয় পার্টির রওশন এরশাদ) কথা বলেছি এ ব্যাপারে। আমি বলেছি, আপনারা যেভাবে চান, সেভাবে হবে। যেহেতু সব দলের প্রতিনিধি আছে।

তিনি বলেন, জানি না এটা এখন প্রয়োজন আছে কি-না। তবে সত্যি কথা বলতে কী- আমাদের  হাতে এখন এতোগুলো প্রকল্প আছে, সেগুলো খুব তাড়াতাড়ি শেষ করতে হবে ।  মন্ত্রণালয় থেকে কাউকে সরালে কাজে ব্যাহত হবে । এই কাজগুলো দ্রুত শেষ করতে চাই। দেশের উন্নয়ন কাজে কোনো বাধা হোক এটা আমি চাই না ।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রতিদিন ১৭-১৮টি করে প্রকল্প পাশ হচ্ছে। মন্ত্রীসভা ছোট করলে এগুলো বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে না। তারপরও অপজিশন ডিমাণ্ড করলে করবো। না করলে যেভাবে আছে সেভাবেই থাকবে। আমি রাষ্ট্রপতির সঙ্গে এ ব্যাপারে কথাও বলেছি।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জোট গঠনের স্বাধীনতা সবার আছে। আমি একে স্বাগত জানাই। তবে কারা জোট গঠন করেছে তা আগে দেখতে হবে। একটু লক্ষ্য রাখা দরকার, কারা কারা এক হলো। কোন চরিত্রের লোক তারা। এমনকি মেয়েদের প্রতি কার কী মন্তব্য।ঐকের নামে একটি স্বার্থনেষী মহল জোট গঠন করেছে। এখানে স্বাধীনতা বিরোধী আছে, জঙ্গিবাদ সন্ত্রাস সৃষ্টিকারী আছে। সব মিলেই কিন্তু একটা হয়েছে। এর মধ্যে অনেকেই আওয়ামী লীগে ছিল। তারা এখন আওয়ামী লীগের বিরোধী হয়েছে।

আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন। এখানে সরকারের কোনও ভূমিকা নাই। নির্বাচন কমিশন স্বাধীন। তারা প্রস্তুতি নিচ্ছে স্বাধীনভাবে। তবে সরকার তাদের প্রয়োজনীয় সহায়তা করবে। নির্বাচন নিয়ে যারা সংশয় সৃষ্টি করতে চাচ্ছে তাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে বাংলাদেশে যেন গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা না থাকে। আরা ধারাবাহিকতা না থাকলে কিছু লোকের সুবিধা হবে। তাই তারা নির্বাচন নিয়ে সংশয় সৃষ্টি করতে চায়।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের যে প্রস্তুতি নিচ্ছে, যে সময় তারা নির্বাচনের শিডিউল ঘোষণা দেবে ঠিক সে সময়েই নির্বাচন হবে। আমি বিশ্বাস করি নির্বাচন সঠিক সময় এবং সুষ্ঠু হবে।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে ক্ষুদা  মুক্ত বাংলাদেশ করতে আমরা সক্ষম হয়েছি , এ সরকারের ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে  ২০৪১ সালের মধ্যে দারিদ্র মুক্ত বাংলদেশ করতে  সক্ষম হব।

এর আগে সংবাদ সম্মেলনের প্রথমেই প্রধানমন্ত্রী তাঁর লিখিত বক্তব্যে সৌদি আরব সফরের বর্ণনা দেন।

সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সৌদের আমন্ত্রণে গত মঙ্গলবার চারদিনের সফরে সৌদি আরব যান প্রধানমন্ত্রী। সফরে তিনি সৌদি আরবের বাদশাহর পাশাপাশি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে বৈঠক করেন। এছাড়া রিয়াদের কূটনৈতিক এলাকায় নিজস্ব ক্রয়কৃত  সাড়ে৮ কাঠা জমিতে বাংলাদেশ দূতাবাস ভবনের উদ্বোধন এবং জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলের চ্যান্সেরি ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি মদিনায় গিয়ে মসজিদে নববীতে এশার নামাজ আদায় এবং মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর রওজা জিয়ারত করেন। সফর শেষ করে দেশে ফেরার আগে পবিত্র ওমরাহ পালন করেন প্রধানমন্ত্রী।

সর্বশেষ - সর্বশেষ সংবাদ