রাজধানী, রাজনীতি, সারাদেশ

প্রার্থী যদি অবৈধ ঘোষিত হয় তাহলে এর দায়-দায়িত্ব কে নেবে?-বিএনপি

%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%a5%e0%a7%80-%e0%a6%af%e0%a6%a6%e0%a6%bf-%e0%a6%85%e0%a6%ac%e0%a7%88%e0%a6%a7-%e0%a6%98%e0%a7%87%e0%a6%be%e0%a6%b7%e0%a6%bf%e0%a6%a4

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে উচ্চ আদালতের রায়ে অবৈধ ঘোষিত প্রার্থীদের স্থলে বিকল্প প্রার্থী দেয়ার সুযোগ দেয়া অথবা ওইসব আসনে পুন:তফসিল ঘোষণার জন্য নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাছে দাবি জানিয়েছে বিএনপি।

(বাংলাদেশ একাত্তর.কম) স্টাফ রিপোটারঃ

বৃহস্পতিবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও অন্য কমিশনারদের সঙ্গে সাক্ষাতে দলটির প্রতিনিধি দল এ দাবি জানান। পরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান নজররুল ইসলাম খান বলেন, আমরা একটা বিশেষ অনুরোধ নিয়ে ইসিতে এসেছিলাম। আমাদের বেশকিছু প্রার্থী আদালত কর্তৃক অবৈধ ঘোষিত হয়েছে। ইতিমধ্যে আমাদের আটজন প্রার্থীর প্রার্থীতা বাতিল করা হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন যেসব প্রার্থীর প্রার্থীতা বৈধ ঘোষণা করেছেন, তাদের মধ্য থেকে একজন করে আমরা প্রত্যেক আসনে প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা করেছি। এখন এই প্রার্থী যদি অবৈধ ঘোষিত হয়, তাহলে এর দায়-দায়িত্ব কে নেবে? তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন বলেছেন বৈধ। আদালত বলছেন অবৈধ। তাহলে ভুল করলে নির্বাচন কমিশন করেছে। কিন্তু শাস্তিটা আমাদের পেতে হবে কেনো? আমরা সে কথাই নির্বাচন কমিশনকে বলেছি যে, আপনারা এখন দুটি কাজ করতে পারেন। একটি হলো ওই নির্বাচনি এলাকায় আমাদের আরো যে প্রার্থী বৈধ হয়েছে তা আপনাদের বিবেচনায় নেওয়া। তাদের মধ্যে থেকে যেকোনো একজনকে নির্বাচন করতে সুযোগ দিন। কিংবা কেউ মরে গেলে যেমন ওই আসনের নির্বাচন স্থগিত করে রিসিডিউল হয়, তেমনই পুন:তফসিল করুন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, তারা (ইসি) আমাদের যুক্তিকে অগ্রাহ্য করেন নাই। তারা বলেছেন একসঙ্গে বসে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। আমরা তাদেরকে অনুরোধ জানিয়েছি খুব দ্রম্নত যেনো তারা এ সিদ্ধান্ত নেন। নজরুল ইসলাম খান বলেন, নির্বাচন মানেই হচ্ছে প্রতিদ্বন্দ্বিতা। আর প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয় সমানে সমানে। ক্ষমাতাসীন দলের সঙ্গে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে বিএনপি, ধানের শীষ। সেই প্রার্থীদের এভাবে অবৈধ ঘোষণা করে সরকারি দল বা সরকারি দলের যে প্রতীক সেটাকে ওয়াকওভার দেয়ার যে ব্যবস্থা চলছে। আমরা মনে করি এটা গ্রহণযোগ্য নয়। এর একটা প্রতিকার থাকা উচিত এবং প্রতিকার যা হতে পারে তার অলরেডি সে প্রস্তাব আমরা করেছি। আমরা আশা করছি যে প্রতিকার পাবো।

এদিন বিএনপির প্রতিনিধি দলে ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদষ্টো বিজন কান্তি সরকার উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email
Comments
Share

bangladesh ekattor

বাংলাদেশ একাত্তর.কম

Reply your comment

Your email address will not be published. Required fields are marked*

nine + seventeen =

বাংলাদেশ একাত্তর