NEWS, সারাদেশ

টিএসআই সেলিম মিয়া অস্ত্র ছাড়েননি মৃত্যুর সময়

%e0%a6%9f%e0%a6%bf%e0%a6%8f%e0%a6%b8%e0%a6%86%e0%a6%87-%e0%a6%b8%e0%a7%87%e0%a6%b2%e0%a6%bf%e0%a6%ae-%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a7%9f%e0%a6%be-%e0%a6%85%e0%a6%b8%e0%a7%8d%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%b0

নিজেস্ব প্রতিবেদক : নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলায় নির্বাচনী সরঞ্জাম নিয়ে ফেরার পথে ট্রলারডুবিতে নিখোঁজ শহর উপপরিদর্শক (টিএসআই) সেলিম মিয়ার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মেঘনা নদীর মোহনা চর ধলেশ্বরী এলাকায় লাশটি ভেসে উঠলে কলাগাছিয়া নৌফাঁড়ির পুলিশ সদস্যরা তা উদ্ধার করেন। এ সময় তাঁর সরকারি পিস্তল, গুলি ও ম্যাগাজিন সঙ্গেই ছিল। নিহত সেলিম মিয়া গোপালগঞ্জের গোপীনাথপুর এলাকার ইয়ার আলী শেখের ছেলে। কলাগাছিয়া নৌফাঁড়ির দায়িত্বরত পুলিশ পরিদর্শক মোস্তাফিজুর রহমান সকালে বলেন ভাই শোনেন আমাদের এই ভাই (টিএসআই সেলিম মিয়া) তাঁর অস্ত্রটি ধরে রাখা অবস্থায় মৃতদেহ উদ্ধার করি। মৃত্যুর সময়ও অস্ত্র ধরে রাখার কারণ জানতে চাইলে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন মৃত্যুর সময়ও দায়িত্ব পালন করে গেছেন টিএসআই সেলিম। পুলিশের অস্ত্র খোয়া গেলে সমস্যা হয়। ট্রলারডুবির সময় সেলিম চাইলে অস্ত্র ফেলে দিতে পারতেন। কিন্তু তিনি ছাড়েননি। সরকারি কোনো আমানত তিনি হারাননি। লাশ উদ্ধারের সময় সরকারের দেওয়া পিস্তল ছিল, গুলি ছিল, ম্যাগাজিনও ছিল। গত ৩১ মার্চ রোববার নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার চরকিশোরগঞ্জের চরহোগলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নির্বাচনী দায়িত্ব পালন শেষে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, পোলিং এজেন্ট, পুলিশ ও আনসার সদস্যসহ ১৯ জনের একটি দল ট্রলারে চড়ে বৈদ্যেরবাজার ঘাটের উদ্দেশে রওনা দেন। সন্ধ্যা ৭টার দিকে প্রবল ঝড়ের কবলে পড়ে ট্রলারটি মেঘনা নদীর চরহোগলা এলাকায় উল্টে যায়। এ সময় ১৬ জন তীরে উঠতে সক্ষম হলেও প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, একজন পুলিশ কর্মকর্তা ও একজন আনসার সদস্য নিখোঁজ ছিলেন। ঘটনার পরপর তাঁদের উদ্ধারে অভিযান চালায় ডুবুরিরা। সোমবার সকালে নারী আনসার সদস্য রীতা আক্তারের লাশ উদ্ধার করা হয়। পরপর মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে চরকিশোরগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জ এলাকার মেঘনা নদীর মোহনা থেকে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা  বোরহান উদ্দিনের লাশ উদ্ধার করে নৌবাহিনীর ডুবুরি দল। নিহত বোরহান উদ্দীন সোনারগাঁ উপজেলার মেঘনাঘাট শাখার ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের (ইউসিবি) ব্যবস্থাপক ছিলেন। তাঁর বাড়ি নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের রামনগর গ্রামে। তিনি সোনারগাঁর মোগড়াপাড়া চৌরাস্তা এলাকার হাবিবপুর গ্রামে ভাড়া বাসায় থাকতেন। তাঁর স্ত্রী ও দুই ছেলে রয়েছে। নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক মামুনুর রশিদ জানান নিখোঁজ তিন ব্যক্তির সবারই মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Comments
Share
bangladesh ekattor

bangladesh ekattor

বাংলাদেশ একাত্তর.কম

Reply your comment

Your email address will not be published. Required fields are marked*

4 × two =