NEWS, রাজধানী

গৃহকর্মী হাওয়াকে অমানবিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও কর্মসূচী

%e0%a6%97%e0%a7%83%e0%a6%b9%e0%a6%95%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%ae%e0%a7%80-%e0%a6%b9%e0%a6%be%e0%a6%93%e0%a7%9f%e0%a6%be%e0%a6%95%e0%a7%87-%e0%a6%85%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a6%ac%e0%a6%bf%e0%a6%95

[বাংলাদেশ একাত্তর.কম]

প্রতিবেদকঃ শামীম শেখগৃহকর্মী হাওয়া ( ১৪) এর উপর অমানবিক নির্যাতনের প্রতিবাদ সহ সারাদেশে গৃহকর্মীনারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধের দাবিতে মানববন্ধন ও কর্মসূচী ।  সম্প্রতি দক্ষিণ বনশ্রী, রক-ই, রোড-৮/২, ৪৩নং বাড়ীর ৬ষ্ঠ তলা থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় এক গৃহকর্মীকে পুলিশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় জড়িত গৃহকর্তা মোস্তাকিন শরীফ ও তার স্ত্রী জান্নাতুল। সাঈদাকে আটক করে পুলিশ।

গৃহকর্মী হাওয়াকে অমানবিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচী

পুলিশ বাদী হয়ে খিলগাও থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন ও তাদের জেল হাজতে প্রেরণ করে । গৃহকর্মীর নাম হাওয়া (১৪), জেলা কিশোরগঞ্জ । গৃহকর্মী হাওয়াকে কয়েকদিন যাবৎ অনাহারে রেখে বাথরুমে আটকিয়ে নির্যাতন করেন। গৃহকর্তা ও গৃহকত্রী হাওয়াকে নির্যাতনের মাধ্যমে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ঝলসানো ও ক্ষত বিক্ষত করে।

সংবাদটি বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন-BHRC দক্ষিণ শাখার দৃষ্টিতে পড়লে গত ২ নভেম্বর ২০১৮ শুক্রবার BHRCর ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার সভাপতি মোঃ ফিরোজ আলম সুমন ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আজমুল হকসহ বিভিন্ন থানার মানবাধিকার নেতৃবৃন্দ ঢাকা মেডিকেল কলেজে পরিদর্শনে গিয়ে নির্যাতিতাকে আর্থিক সহযোগিতা সহ তার সুচিকিৎসার জন্য মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করেন এবং মামলা পরিচালনাকারী খিলগাও থানার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে ন্যায়বিচারের লক্ষ্যে এক বৈঠকে মিলিত হন।

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা সহ BHRCর পক্ষ থেকে নির্যাতিত হাওয়া (১৪)-এর সুস্থ হয়ে ওঠা পরবর্তী যাবতীয় ব্যয়ভারসহ তার পরিবারকে স্বাবলম্বী হতে আর্থিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে। শুধু হাওয়াই নির্যাতনের শিকারের শেষ নয়, দেশে অগণিত জানা-অজানা অনেক গৃহকর্মী এভাবে প্রতিনিয়ত নির্যাতনের শিকার হচ্ছে, যা দৃষ্টিপাতের বাইরেই থেকে যায়। বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন গৃহকর্মীদের উপর নির্যাতন তথা সকল নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার রয়েছে। যেখানে নির্যাতন লক্ষ্য করবে সেখানেই BHRC সাহায্যের জন্য ছুটে যাবে।

এছাড়া যাতে করে গৃহকর্মীনারী ও শিশু নির্যাতনের শিকার না হয়, সে লক্ষ্যে BHRC বিভিন্ন সভা, সেমিনার, কর্মশালা, মানববন্ধন কর্মসূচীর মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করে আসছে। নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধের লক্ষ্যে ইভ টিজিং ও দোররা মারা অপরাধীদের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন অধ্যাদেশের আওতায় আনার দাবিতে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন ইতিমধ্যে বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেছে। সারাদেশে সপ্রতিকালে একটার। পর একটা নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের খবর, শিশু ধর্ষণের খবর, ইভ টিজিং এবং দোররা মারার ঘটনায় বিবেকবান মানুষ স্তম্ভিত হয়ে পড়েছে। মানুষের মধ্য থেকে এই পশুত্ববোধ কীভাবে দমন করা যায়, আজ সবার কাছে এটাই প্রশ্ন হয়ে দাড়িয়েছে ।

গৃহকর্মী হাওয়াকে অমানবিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচী
গৃহকর্মী হাওয়াকে অমানবিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচী

আইন করা হলেও আইনের প্রয়োগ যথাযথ হচ্ছে না। আইনের প্রতি এক ধরনের মানুষ ভ্ৰকুটি দিয়ে চলছে, অপরদিকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর কতিপয় সদস্য যথাযথ আইন প্রয়োগ করছে না বরং অপরাধীদের সহায়তা করছে। এ ধরনের পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে অপরাধ প্রবণতা কমার চেয়ে বরং দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, শিল্প প্রতিষ্ঠান, গার্মেন্টস এবং অফিস আদালতগুলোতে মেয়েরা পেশাগত প্রয়োজনে আসাযাওয়া করছে। চাকরি স্থলে মেয়েদের উপর যৌন হয়রানি ছাড়াও পথে-ঘাটে বখাটেদের ইভ টিজিং নারী নির্যাতনের প্রথম অধ্যায় শুরু হয় । ইভ টিজিংকারীরা প্রথম ইভ টিজিং করেই ক্ষান্ত হয় না, পরবর্তীতে অপহরণ, ধর্ষণ এবং এক পর্যায়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে যার সংখ্যা কেবল বৃদ্ধি পাচ্ছে।

পরিশেষে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন আশা করে দেশের আইনশৃংখলা বাহিনীর যথাযথ পদক্ষেপ, আইনের সঠিক প্রয়োগ । এবং আমাদের সভ্য সমাজের উচ্চশিক্ষিত মানুষগুলোর মন-মানসিকতা এবং মানবিকতা জাগ্রত হোক, তাহলেই গৃহকর্মীগণ নিৰ্যতানের শিক্ষার থেকে মুক্তি পাবে।

Print Friendly, PDF & Email
Comments
Share

bangladesh ekattor

বাংলাদেশ একাত্তর.কম

Reply your comment

Your email address will not be published. Required fields are marked*

eight − eight =

বাংলাদেশ একাত্তর