সারাদেশ

উচ্ছেদের পর আবারো দখলে ভাসানটেক সড়ক

%e0%a6%89%e0%a6%9a%e0%a7%8d%e0%a6%9b%e0%a7%87%e0%a6%a6%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%aa%e0%a6%b0-%e0%a6%86%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a7%8b-%e0%a6%a6%e0%a6%96%e0%a6%b2%e0%a7%87-%e0%a6%ad%e0%a6%be

বাংলাদেশ একাত্তর ডেক্স উচ্ছেদের ছয়মাস পার না হতেই আবারো দখলের কবলে ভাসানটেক থেকে মিরপুর ১৪ নম্বর ডেন্টাল কলেজ সড়ক । সড়কটির বেশ কিছু অংশ ধীরে ধীরে দখলে নিয়েছে স্থানীয় দখলবাজ একটি চক্্র। পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় এ চক্রটি মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। সড়কটি দখলে থাকায় সংস্কারকাজে প্রতিনিয়ত বাঁধার সন্মুখীন হচ্ছেন ঢাকা উত্তর সিটিকরপেরোশন। আর এতে নির্দিষ্ট সময়ে সংস্কার কাজ শেষ হবে কিনা তা নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছে।

সরজমিন মিরপুর ১৪ নম্বর থেকে ভাসানটেক বাজার পর্যন্ত দেখা যায় পুরো সড়কটির বেশ কিছু অংশ দখল করে দোকান পাট সহ অবৈধ স্থাপনা রয়েছে। ১২০ ফুটের এ সড়কটি স্থান ভেদে ৭০ েেথকে ৮০ ভাগ দখলে রয়েছে। বাকি ২০ ভাগ চলাচলের জন্য উন্মুক্ত থাকালেও তা ভাঙ্গাচোরা ও খানাখন্দেভরা। এ সড়কের পাশে রয়েছে ডন্টাল কলেজ,সিআরপি ,ভাসানটেক থানা,পাওয়ার হাউস,বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের আবাসিক ভবন,বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তর ,ফিনান্স সিয়াল ম্যানেজমেন্ট একাডেমি সহ সরকারি -বেসরকারি বেশকিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান । সংকুচিত এ সড়কে প্রতিনিয়ত দুর্ভোগে পড়েন স্থানীয় বাসিন্দা সহ দুরদুরান্ত থেকে আগত লোকজন।

মিরপুর ১৪ নম্বর ডেন্টাল কলেজ থেকে ভাসানটেক সড়কে প্রবেশে করতে চোখে পড়ে সারি সারি টেম্পু,ছোট পিকআপ থামিয়ে রাখা হয়েছে। সিরিয়ালে যাত্রী ওঠানামা করায় এ সড়কের প্রবেশ মুখে প্রতিনিয়ত যানজট লেগে থাকে। পুরো সড়কের দুপাশে রয়েছে মুদি ও টং দোকান,সবজি,বাঁশ,রিক্সা গ্যারেজ,ভাঙ্গারির দোকান। ডেন্টাল কলেজ থেকে কয়েকশ গজ সামনে আসলে চোখে পড়ে বেশ কিছু যানবাহন পাকিং করে রাখা হয়েছে।বিপরীত দিক থেকে আসা যানবাহন এ স্থানে এসে বাঁধার সন্মুখীন হয়।এতে প্রতিনিয়ত যানজট লেগে থাকে। সড়কটির কয়েক’ শ গজ পরপর রয়েছে ইউটার্ন ।কোন যানবাহন ইউটার্ন নিলেই পুরো সড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। গুরুত্বপূর্ন এ সড়কের কোথাও ট্রাফিক পুলিশ নেই। পথচারী আলমাস দেওয়ান বলেন সড়কটি কিছুদিন আগে দখলমুক্ত করা হয়েছে। অথচ কিছুদিন না যেতেই পুনরায় দখল হয়ে গেছে। একজনের দেখাদেখি অন্যজন দখল করেছে। পুলিশ বাঁধা দেয়নি বরং সহযোগিতা করেছে। সংস্কার কাজের ব্যাঘাত হচ্ছে। রাস্তা কিভাবে শেষ হবে? স্থানীয় আওয়ামীলীগের এক নেতা নাম প্রকাশ করার না শর্তে বলেন ভাসানটেক থানার সহযোগিতায় এ সড়কে আবারো দোকানপাট বসেছে। পুলিশ প্রতিদিন চাঁদা তোলে । সিটিকরপোরেশন উচ্ছেদ করলেও পুলিশের কারনে তা দখলবাজদের কব্জায় চলে গেছে।তিনি বলেন এ সড়কে সারাক্ষন যানজট লেগে থাকে।আর দুর্ঘটনা এটা তো মামুলি ব্যাপার । অহরহই ঘটছে। ভাসানটেক বাজারে গিয়ে দেখা যায় পুরো সড়ক ব্লক হয়ে রয়েছে। একপাশে যানবাহন থামিয়ে মালপত্র লোড আনলোড করা হচ্ছে আর অন্যপাশে লেগুনা ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। কোন শৃঙ্খলা নেই। অনেক যাত্রী সিরিয়ালে ওঠানামা করছে। সড়কের এ অংশে প্রতিনিয়ত তীব্র যানজট থাকে।

স্থানীয় ব্যবসায়ি রমিজ উদ্দিন বলেন অনেকদিন এখানে ব্যবসা করছি ।কোন সমস্যা হয়নি। মাঝখানে উচ্ছেদ হলেও পুলিশের অনুমতি নিয়ে আবার দোকান বসিয়েছি। এখন কিছু টাকা দেই পুলিশকে। অবশ্য রাস্তা পাকা হলে টাকার পরিমান বেড়ে যাবে।

সিআরপিতে আসা এক রোগি বলেন এম্বুলেন্স নিয়ে আসতে চাইলে অনেকে এখানে আসতে চায় না। দ্বিগুন ভাড়া দিয়ে আসতে হয়।
পল্লবী জোনের এসি এস এম শামীম বলেন সড়ক ও ফুটপাতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের ব্যাপারে পুলিশ সব সময় সহযোগিতা করে। প্রমান সাপেক্ষে যদি কোন পুলিশ সদস্য ফুটপাত ব্যবসার সাথে জড়িত থাকে তাকে অবশ্যই বিচারের সম্মুখীন হতে হবে।

এনসিসি’র ১৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সালেক মোল্লা বলেন সড়কটি ৫-৬ মাস আগে উচ্ছেদ করা হলেও দখলবাজদের তৎপরতায় তা বেশি দিন স্থায়ী হয়নি। তবে আবারো উচ্ছেদ অভিযান হবে। ২-১ দিন আগেও সিটি করপোরেশনের গাড়ি এসে নির্মান সামগ্রী সহ দোকান পাট তুলে নিয়ে গেছে।মেয়র মহোদয়ের ঘোষনা অনুযায়ী সব ফুটপাত ও সড়ক দখলমুক্ত করা হবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে পুরো সড়ক দখল মুক্ত করা হবে। তিনি বলেন পুলিশ প্রশাসন আন্তরিক থাাকলে এ সড়কে আর দোকান পাট বসবে না।

ডিএনসিসি অঞ্ছল ২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী ইনামুল কবীর বলেন ভাসানটেক সড়কটি প্রায় ৬ মাস আগে দখল মুক্ত করা হয়েছে। কিছুদিন না যেতেই তা আগের অবস্থায় চলে এসেছে। এতে প্রতিনিয়ত সংস্কার কাজে বাঁধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। আবারো উচ্ছেদ হবে তবে পুলিশ প্রশাসন আন্তরিক হলে এ সড়কে আর দখলবাজদের দৌরাতœ্য থাকবে না বলে তিনি মন্তব্য করেন।
১/ছবি ভাসানটেক বাজার এলাকায় সড়ক দখল করে দোকানপাট ও বিভিন্ন যানবাহন

Print Friendly, PDF & Email
Comments
Share
bangladesh ekattor

bangladesh ekattor

বাংলাদেশ একাত্তর.কম

Reply your comment

Your email address will not be published. Required fields are marked*

ten + six =